April 2, 2017

চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ে দুইদিন ব্যাপী বার্ষিক বৈজ্ঞানিক সম্মেলন শুরু

চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ে দুইদিন ব্যাপী বার্ষিক বৈজ্ঞানিক সম্মেলন শুরু

‘এসডিজি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে সরকারের সাফল্যে অনেক উন্নত দেশ বিস্মিত হচ্ছে’ 

 

চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ে “টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা: খাদ্য নিরাপত্তা ও নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতকরণে মৎস্য ও পশু সম্পদের সর্বোত্তম ব্যবহার” শীর্ষক ১৪তম বার্ষিক বৈজ্ঞানিক সম্মেলন ০১ এপ্রিল ২০১৭ ইং রোজ শনিবার বিকেলে শুরু হয়েছে। ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী (এমপি) প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বৈজ্ঞানিক সম্মেলন উদ্বোধন করেন।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সাইফুজ্জামান চৌধুরী (এমপি) বলেন, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) শুধু উন্নয়নশীল দেশের জন্য নয়, এটি সব দেশের জন্যই নির্ধারিত। বর্তমান সরকার এসডিজি’কে খুবই গুরুত্ব দিচ্ছে। বাংলাদেশকে উন্নত দেশে রূপান্তর করার ক্ষেত্রে এসডিজি বাস্তবায়ন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এসডিজি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে বর্তমান সরকার ইতোমধ্যে অনেক সাফল্য অর্জন করেছে। এ সাফল্য দেখে অনেক উন্নত দেশ অবাক হচ্ছে। প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অধীনে এ সংক্রান্ত একটি দপ্তর চালু করা হয়েছে। সাবেক মূখ্যসচিবের নেতৃত্বে এসডিজি বাস্তবায়ন ও অগ্রগতি মনিটর করা হচ্ছে। ভূমি প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, আমরা পরিবর্তনে বিশ্বাসী। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সর্বক্ষেত্রে পরিবর্তন ও ডিজিটালাইজড প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। তিনি আরও বলেন, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয় কিছু ব্যতিক্রম কার্যক্রমের মাধ্যমে দেশ-বিদেশে অনেকের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছে। বর্তমান উপাচার্যের গতিশীল নেতৃত্বে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের আরও অগ্রগতি হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. গৌতম বুদ্ধ দাশের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ.বি.এম. মহিউদ্দীন চৌধুরী, শের-ই বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. কামাল উদ্দিন আহমেদ, এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা উপাচার্য প্রফেসর ড. নীতীশ চন্দ্র দেবনাথ, মালয়েশিয়ার সরকারি উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান Universiti Malaysia Terengganu (UMT) Gi Institute of Tropical Aquaculture Gi Director Prof. Dr. Abol Munafi Bin Ambok Bolong, School of Food Science and Technology (UMT) Gi Dean Prof. Dr. Amiza Mat Amin| স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়ান হেল্থ ইনস্টিটিউটের পরিচালক প্রফেসর ড. জুনায়েদ ছিদ্দিকী। বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন কনফারেন্স হলে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে দেশ-বিদেশের প্রায় তিনশ’ বিজ্ঞানী, গবেষক ও শিক্ষাবিদ অংশগ্রহণ করছেন।

সম্মেলনে মূল প্রবন্ধ (প্রতিপাদ্য বিষয়ে) উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ সেন্টার ফর এডভান্সড স্টাডিজ- এর নির্বাহী পরিচালক ও পরিবেশবিদ ড. এ. আতিক রহমান। দুই দিনের সম্মেলনে মোট ৮টি টেকনিক্যাল সেশনে একটি মূল প্রবন্ধ এবং ৪৫টি গবেষণা প্রবন্ধ উপস্থাপিত হবে। সম্মেলনে বিষয়সংশ্লিষ্ট ৩৮টি পোস্টার প্রদর্শন করা হচ্ছে। 

এবারের বৈজ্ঞানিক সম্মেলনের প্রতিপাদ্য বিষয়: “টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা: খাদ্য নিরাপত্তা ও নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতকরণে মৎস্য ও পশু সম্পদের সর্বোত্তম ব্যবহার (Achieving SDGs for Bangladesh- Integrating livestock and fisheries resources to ensure food safety and security)" প্রতিপাদ্য বিষয়ের ৪টি এজেন্ডা নির্ধারণ করা হয়েছে। সেগুলো হলো: (i) Increased livestock production to achieve SDGs, (ii) Exploring the potentials of fisheries sector in Bangladesh, (iii) Ensuring Food safety and Food Security towards implementing SDGs & (iv) One Health Education to achieve SDGs in Bangladesh.

মাল্টিমিডিয়ায় উপস্থাপিত মূল প্রবন্ধে ড. এ. আতিক রহমান বলেন, বিশ্বব্যাপী পরিবেশের ক্ষতি করছে বড় লোকেরা। আর গরিব লোকেরা তাদের জীবন দিয়ে তা মোকাবেলা করছে। তিনি আরও বলেন, পরিবেশ বিপর্যয় ও জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিগ্রস্থতা রোধে দরিদ্র জনগোষ্ঠী তাদের জীবন-জীবিকা যথা সর্বস্ব দিয়ে জীবনযুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে অথচ তারা এজন্য মোটেও দায়ী নয়। দায়ী হচ্ছে উন্নত বিশ্ব। উন্নত বিশ্বের নেতারা গরিব ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীর ন্যায্য হিস্যা তো দিচ্ছেই না বরং ক্ষতিগ্রস্থতার মাত্রা আরও বাড়িয়ে চলেছে।

আগামীকাল ২ এপ্রিল বিকাল ৫টায় সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নান।