April 10, 2018

ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয়ে “ইনফরমেশন লিটারেসি ইন ডিজিটাল এনভায়রনমেন্ট” শীর্ষক এক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয়ে “ইনফরমেশন লিটারেসি ইন ডিজিটাল এনভায়রনমেন্ট” শীর্ষক এক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

 

চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ে “ইনফরমেশন লিটারেসি ইন ডিজিটাল এনভায়রনমেন্ট”  শীর্ষক এক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

৮ এপ্রিল ২০১৮ইং সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উচ্চশিক্ষা মানোন্নয়ন প্রকল্পের (হেকেপ) পরিচালক ও অতিরিক্ত সচিব ড. গৌরাঙ্গ চন্দ্র মোহান্ত, এনডিসি। প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপাচার্য প্রফেসর ড. গৌতম বুদ্ধ দাশ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরীয়ান মো: হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন প্রফেসর মো: আ: হালিম, প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলমগীর হোসেন ও খালেদ সাইফুল্লাহ প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. গৌরাঙ্গ চন্দ্র মোহান্ত বলেন, বাংলাদেশ উচ্চশিক্ষা গুণগত উন্নয়নের লক্ষ্যে কৌশলগত পরিকল্পনা (Stratagic plan in Higher Education) প্রণয়ন করা হচ্ছে। মোট ৪১টি পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। ২০১৮ হতে ২০৩০ সালের মধ্যে এগুলো বাস্তবায়ন করা হবে। পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়িত হলে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন ঘটবে। তাই আগামীর বাংলাদেশের দিনগুলোর সম্ভাবনা খুবই উজ্জ্বল।

ড. মোহান্ত আরও বলেন, ডিজিটাল যুগে লাইব্রেরীর সঠিক ব্যবহার হোক-এটাই আমাদের প্রত্যাশা। তিনি বলেন, দেশের ৩৮টি বিশ্ববিদ্যালয়কে একই নেটওয়ার্কের আওতায় আনার জন্য কাজ চলছে। এটি স্থাপনের কাজ শেষ হলে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো পুরোপুরি ডিজিটাল যুগে প্রবেশ করবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. গৌতম বুদ্ধ দাশ বলেন, তথ্য-প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে গবেষক ও শিক্ষার্থীরা নিজেদের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে পারবেন। তিনি বলেন, প্রযুক্তির কল্যাণে গবেষণার কাজ সম্পাদন সহজ হলেও গবেষণার ফলাফল লিখনের ক্ষেত্রে আরও দক্ষতা অর্জন করতে হবে। তা না হলে নিজের কাজ সম্পর্কে মানুষকে জানানো সহজ হবে না। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষার উন্নয়নে বর্তমান সরকার  বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।